Please Enable JavaScript
TrickBuzz

আগামী মাসের ফ্রিল্যান্সিং প্রস্তুতি কেমন হওয়া উচিত?

আগামী মাসের ফ্রিল্যান্সিং প্রস্তুতি কেমন হওয়া উচিত?

আগামী ২ কিংবা ৩ মাসের মধ্যে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোতে অনেক কম্পিটিশন শুরু হবে, কাজও আসবে অনেক, কিন্তু কিভাবে?
আজকে কিছু সেলার দের সাথে কথা বলছিলাম এবং নিজেও কিছু এনালাইসিস করলাম। বায়ার এবং সেলার দুটি পার্স্পেক্টিভে কিছু জিনিস শেয়ার করছি যা কিনা হতে পারে যদি করোনা পরিস্থিতি থেকে আগামী ৬ মাসেও পুরো বিশ্ব পুরোপুরি পরিত্রান না পায়।
প্রথমে একজন বায়ারের পার্স্পেক্টিভে বলবো:
ফ্রিল্যান্সিং এ শুধুমাত্র নতুন সেলার না নতুন নতুন বায়ারও আসবেন এখন। যারা এতদিন শুধুমাত্র এনালগ/ট্রেডিশনাল টাইপ বিজনেস করতেন তারাও এখন ডিজিটালাইজড হতে বাধ্য। তারাও চাবেন কিভাবে তাদের সার্ভিস বা প্রোডাক্ট কে অনলাইনে ভিসিবল করা যায়। এতে করে যেসকল বায়ার এতদিন সেইম টাইপের প্রোডাক্ট নিয়ে অনলাইনে কাজ করে যাচ্ছিলেন তাদের জন্য একটা বড় কম্পিটিশন তৈরী হবে। তখন তারাও চাবেন তাদের সার্ভিস কিংবা প্রোডাক্টকে কিভাবে আরো বেশি মার্কেটে সুন্দর মতো উপস্থাপন করা যায়। আর তখনি তারা দক্ষ সেলার খুঁজতে থাকবেন অথবা বেশি টাকা খরচ করে হলেও ভালো জিনিস তৈরী করবেন। আর নতুন বায়াররা যাকে পাবে যেই টাকায় পাবে তাকেই অর্ডার করবে, কারন তাদের মার্কেট প্লেস বুঝতে সময় লাগবে, আবার অনেকেই এই সময়ে বেশি টাকা নাও খরচ করতে পারেন। অনেক কিছুই হতে পারে। ইমেইল মার্কেটিং, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বলতে ডিজিটাল মার্কেটিং এর সার্ভিস নিয়ে যারা কাজ করেন তাদের কাজ আরো বেড়ে যাবে আমার ধারনা। 
এইবার সেলার এর পার্স্পেক্টিভে বলবো:
বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অনেকেই চাকরি হারাবেন, এবং তাদের কাছে অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং কিংবা রিমোট জব করা ছাড়া কোনো ওয়ে থাকবেনা। এতে করে দুটি জিনিস হবে: এক যারা এতদিন মার্কেটপ্লেসে কাজ করতেন তাদের জন্য একটা বিরাট কম্পিটিশন হবে। দুই যারা একদমই কাজ জানেননা তাদের দিয়ে মার্কেটপ্লেস ভরে যাবে। এতে করে মার্কেটপ্লেসে কাজ প্রচুর থাকা সত্ত্বেও অনেকেই কাজ পাবেনা। নতুনরা না বুঝে একাউন্ট করবে এবং প্রচুর সাসপেন্ড হবে। অনেকেই $৫ থেকে $২০ দিয়ে ওয়েবসাইট ডিজাইন করবে এবং নতুন নতুন ক্লায়েন্টরা তাদেরকেই হায়ার করবে। যার ফলে প্রকৃত ফ্রিল্যান্সাররা মার্কেটপ্লেসে তাদের অবস্থান হারাবেন। 
অন্যদিক দিয়ে যারা অনেক দিন ধরে ধরুন লোকালি গ্রাফিক কিংবা ওয়েব ডিজাইনের কাজ করতেন তারাও ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে আসবেন। এবং তারা যদি ভালো কাজ করা শুরু করেন তাহলে এতদিন যারা কোনোমতে কাজ করতেন তাদের জন্য বড় কম্পিটিশন হবে। 
আবার যারা এখন অনেক কাজ পাচ্ছেন, তাদের কে অনেক বেশি বায়ার সেটিস্ফেকশনে কাজ করতে হবে। বায়ার কে ভালো মতো ট্রিট করতে হবে, বায়ারের মাইন্ড রিড করতে জানতে হবে এখন প্রচুর। 
যারা অনেকদিন ধরে কাজ পাচ্ছেন না, চিন্তার কোন কারন নেই, কাজ অনেক আসবে কিন্তু তার আগে নিজেকে প্রস্তুত করুন।
কিকি করা যেতে পারে?
১। আপনার সার্ভিস নিয়ে বা আপনি যেই কাজগুলতে পারদর্শী সেগুলো নিয়ে আর্টিকেল কিংবা ব্লগ লেখা শুরু করুন।
২। নিজের সার্ভিস সম্পর্কে মানুষকে যারা একদমি কাজ জানে না ছোট ছোট টিপস বা ট্রিক্স দিয়ে সাহায্য করুন। 
৩। নিজের যেই স্কিলটি আছে তাকে আরও শক্তিশালী করুন।
৪। প্রতিদিন একটি রুটিন করে ফেলুন, নামাজ, ব্যায়াম, লার্নিং এবং ফ্রিলান্সিং এই চারটা বিষয় মাথায় রেখে কাজ করুন। 
প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশ সহ পুরো বিশ্ব এখন পুরোপুরি ডিজিটাল হচ্ছে, আপনাকেও তার সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। আজকে আমার একাউন্টও সাসপেন্ড হতে পারে, আপনারও হতে পারে সেগুলো নিয়ে পরে না থেকে আরো যত মার্কেটপ্লেস আছে সেগুলো এক্সপ্লোর করুন।
ভালো থাকুন এবং সুস্থ থাকুন।
লেখকঃ Rifat M Huq
© TrickBuzz.Net 2015-2020

RONiB

This author may not interested to share anything with others!

Add comment

Most popular

Most discussed